একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ডেটা ও ব্যাটারি ৩০% পর্যন্ত বাঁচান

0

অ্যান্ড্রয়েড ফোন যখন নতুন থাকে তখন সব দিক থেকে ভাল সার্ভিস দেয়। ব্যাটারিতে অনেকক্ষণ চার্জ থাকে , ফোন ল্যাকিং করে না , এককথায় একটি নতুন ফোনের যত ধরনের ব্যবহার আছে সবগুলো করলে ১০০ তে ১০০ সার্ভিস দেয়। কিন্তু যখন ফোনটি আস্তে আস্তে পুরোনো হয়ে যায় তখন যত ধরনের সমস্যা সব একসাথে ফোনে অ্যাটাক করে । ফলে কোন কোন ফোনের ব্যাটারিতে চার্জ থাকে  না, ফোন ল্যাকিং করে , ভাইরাস এটাক করে আরো অনেক সমস্যা শুরু হয়। সবগুলো সমস্যার সমাধান তো একদিনে দেওয়া সম্ভব না। আমি আজকে আপনাদেরকে শুধু একটি সেটিং বন্ধ করে কিভাবে মোবাইলের ৩০ % পর্যন্ত ডাটা ও ব্যাটারি বাচানো যাবে সেটা শিখিয়ে দেব।

একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ডেটা ও ব্যাটারি ৩০% পর্যন্ত বাঁচান


অসাধারণ এই সেটিংসের কিছু ভালো দিক আছে আবার কিছু খারাপ দিকও আছে । আমি সেই ভালো ও খারাপ দিকগুলো আপনাদেরকে জানিয়ে দেবো । যাতে আপনি বিবেচনা করে দেখতে পারেন, আপনি এই সেটিংটি বন্ধ করবেন , না বন্ধ করবেন না। কেন বন্ধ করবেন আর কেন বন্ধ করবেন না তাও জানিয়ে দেবো । শুরু করা যাক:-



একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান 

এই সেটিংসটি বন্ধ করার জন্য আপনাকে নিচে দেখানো প্রতিটি ধাপ অনুসরণ করতে হবে।


  • প্রথমে আপনার মোবাইলের সেটিংসে যান


একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান

  • এরপর সার্চ বক্সে ক্লিক করুন

একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান

  • তারপর, সার্চ বক্সে 'Data usage' লিখুন। সার্চ বাটনে ক্লিক করুন।
একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান


  • এবার সবার প্রথমে আসা 'Data usage' এ ক্লিক করুন
একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান

  • এবার আপনার ফোনে যেসব অ্যাপস আপনি কম ব্যবহার করেন , যেই আ্যপটাকে আপনার ব্যাকগ্রাউন্ডে ব্যবহার করা প্রয়োজন নেই , সেই অ্যাপটি সিলেক্ট করুন । আমি আপনাদের বোঝানোর জন্য ফেসবুক সিলেক্ট করলাম। 




একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান

  • এবারে, আ্যাপটিতে ক্লিক করে, ভেতরে ঢুকে একেবারে শেষের দিকে যান, গিয়ে দেখবেন 'background data' লেখা আছে। ঐখানে ক্লিক করুন।



একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান

  • এবারে একটি পপ আপ উইন্ডো আসবে, 'Ok' ক্লিক করুন



একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান


  • এখন আপনার ফোনের background data ব্যবহার বন্ধ হয়ে গেছে



একটি সেটিংস বন্ধ করে মোবাইলের ৩০% পর্যন্ত ডেটা ও ব্যাটারি বাঁচান


Background data বন্ধ করার সুবিধা


ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটা বন্ধ করার কিছু সুবিধা আছে । সুবিধাগুলো নিচে উল্লেখ করা হলোঃ


  • ফোনের ব্যাটারির চার্জ ২০% পর্যন্ত বাঁচানো যাবে
  • মোবাইলের ডাটা  অপচয় ৩০ থেকে ৪০ % পর্যন্ত  কমানো যাবে।
  • মোবাইল ফোন ল্যাকিং করবে না।
  • ফোন স্মুথ ভাবে কাজ করবে।
  • টাকা সাশ্রয় হবে।
  • ফোনের স্টোরেজ বেচে যাবে।


Background data বন্ধ করার অসুবিধা


ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটা বন্ধ করলে কিছু অসুবিধায় পড়তে হতে পারে। অসুবিধাগুলো হলোঃ

  • অ্যাপস টি ব্যাকগ্রাউন্ডে চলবে না
  • ব্যাকগ্রাউন্ডে নেটওয়ার্কের এক্সেস থাকবে না
  • কিছু কিছু ক্ষেত্রে অ্যাপসটি ভালোভাবে কাজ করবেনা
  • সাধারনত অ্যাপসটি ব্যবহার করা ছাড়া অ্যাপসটির কোন নোটিফিকেশন আসবেনা
  • ঐ অ্যাপটি দিয়ে কোন কিছু ডাউনলোড করা হলে সেটা অ্যাপ থেকে বেড়িয়ে গেলে আর ডাউনলোড হবে না। ( অন্য অ্যাপ হলে সমস্যা নেই )

Background Data usage কেন বন্ধ করবেন আর কেন বন্ধ করবেন না?


ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটা বন্ধ রাখলে ফোনের ব্যাটারি সাশ্রয় হবে। ফলে আপনাকে বারবার চার্জে দেওয়ার প্রয়োজন হবে না। মোবাইলের অতিরিক্ত ডাটা অপচয়ের হাত থেকে রক্ষা পাবে। যে অ্যাপসটির  ব্যাকগ্রাউন্ড ডেটা বন্ধ করেছেন সেই অ্যাপসটি ব্যাকগ্রাউন্ডে কাজ করার সময় যে অতিরিক্ত স্টোরেজ নিতো সেই স্টোরেজ টুকু বেঁচে যাবে।  আর বেশিরভাগ ফোন ল্যাকিংয়ের প্রধান কারণ, ফোনে যে অ্যাপসগুলো আছে সেগুলো ব্যাকগ্রাউন্ডে ঠিকমতো কাজ করতে না পারা। যখন আপনি ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটা অফ করে দেবেন, তখন অতিরিক্ত অ্যাপগুলো ব্যাকগ্রাউন্ডে আর কাজ করবে না । ফলে ফোনে তার কাঙ্খিত কাজটুকু সুন্দরভাবে করতে পারবে আর ফোনের ল্যাকিং কমে যাবে।

তবে আপনি যদি গুরুত্বপূর্ন অ্যাডগুলোতে এই সেটিংসটি অফ করেন তাহলে আপনাকে কিছু সমস্যায় পড়তে হতে পারে। যেমনঃ যদি আপনি এই ডাটা ইউজেস সেটিংসটি ফেসবুকে ক্ষেত্রে অফ করেন তাহলে, ফেসবুকের কোন নোটিফিকেশন আপনার ফোনে ভাসবে না । মেসেঞ্জারে কেউ মেসেজ দিলে , মেসেঞ্জারে না ঢুকা পর্যন্ত আপনি নতুন মেসেজ দেখতে পারবেন না। তাই আপনাকে কেউ জরুরিভাবে নক করলে আপনি অনলাইনে থাকলেও তৎক্ষণাৎ ভাবে উত্তর দিতে পারবেন না। 

শেষ কথাঃ আপনি যদি মোবাইল ডাটা ব্যবহার করে থাকেন তাহলে, সেটিংসটি আপনাকে বন্ধ করার জন্য সুপারিশ করব কিন্তু যে সকল অ্যাপস আপনি নিয়মিতভাবে ব্যবহার করেন সেই সকল অ্যাপে এই সেটিংসটি অফ না করার জন্যই আপনাকে বলব। এখন ভালো ও খারাপ দিকগুলো বিবেচনা করে এই সেটিংসটি আপনি আপনার ফোনে অফ করবেন, না করবেন না সেটা আপনার সিদ্ধান্ত। যদি এই সেটিংসটি  অফ করতে গিয়ে আপনার কোন সমস্যা হয় তাহলে আবার ভালোভাবে আর্টিকেলটি পড়ুন ‌‌। এরপরেও সমস্যা হলে  মন্তব্য করুন। 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !